Sunday, May 19, 2024
spot_img
Homeজেলাপর পর লোকসভা, বিধানসভা ভোট আসে যায়, ফলতার যান যন্ত্রণার হাল ফেরে...

পর পর লোকসভা, বিধানসভা ভোট আসে যায়, ফলতার যান যন্ত্রণার হাল ফেরে না, আক্ষেপ ভোটারদের

অশোক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: পর পর লোকসভা, বিধানসভা থেকে গ্রাম পঞ্চায়েত ভোট হয়েই যাচ্ছে। ভোটের সময় বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটারদের কত রকম আশ্বাস দিয়ে যান প্রার্থীরা। জেতার পর তা বেমালুম ভুলে যান। বরং
নানা পদ পেয়ে কেউ নেতা, কেউ মন্ত্রী কেউ জেলা পরিষদের মাতব্বর হয়ে ছড়ি ঘোরাতে ব্যস্ত
হয়ে পড়েন। তখন আর আমজনতার দুর্দশার কথা কারও মনেই থাকে না। উদাহরণ ডায়মন্ডহারবার
লোকসভা কেন্দ্রের ফলতার পরিবহণ দুর্দশা। ’ ফলতার গ্রামীণ অঞ্চল বলরামপুর খালের ধারে
দাঁড়িয়ে আক্ষেপের সুরে এমন কথা বললেন, কানাই পাত্র। বয়স ষাট পেরিয়েছে। এক কথায় মেঠো
মানুষ হলেন কানাইবাবু। ভোট প্রসঙ্গ তুলতেই থামিয়ে দিলেন। বরং রুষ্ট সুরে বললেন, এই সময়
কালের ভিতর অনেক ভোট দেখলাম। ফলতার উন্নয়ন নিয়েও বড় বড় কথা শুনতে পাই। বাস্তব
ছবিটা হল ফলতার মানুষের সবচেয়ে বড় সমস্যা নিয়ে কেউ ভাবে না। জানেন এই প্রত্যন্ত অঞ্চল
থেকে কাউকে কলকাতা যেতে হলে অনেকগুলি গাড়ি পাল্টে যেতে হয়। তাতে খরচ ও ধকল দুটোই
সইতে হয়। বললাম, কেন ৮৩ নম্বর বেসরকারি বাস তো এই বলরামপুর থেকে ধর্মতলা যাচ্ছে।
তাতে করেই তো কলকাতা যাওয়া যায়। তা হলে? কানাইবাবু এবার রেগে গেলেন। বললেন, আপনি
কতটা জানেন। এটা ঠিক ৮৩ নম্বর এখান থেকে ছাড়ে। কিন্তু তার দৈন্যদশা কি জানা আছে? বহু
বছর আগে এই ৮৩ রুটের রমরমা ছিল। সব মিলিয়ে ৪০ থেকে ৪২ টি বাস চলত। ফলতা রোডের উপর
দিয়ে দিঘিরপাড়, মল্লিকপুর, হরিণডাঙা, দোস্তিপুর, ফতেপুর হয়ে জাতীয় সড়ক হয়ে সোজা
ধর্মতলা যেত। ভোর ৪ টের সময় ফলতা থেকে ছেড়ে যেত। সন্ধ্যা ৭ টার সময় ধর্মতলা থেকে শেষ
বাস ছেড়ে আসত। যাত্রীদের কথা ভেবে রাতে ধর্মতলাতে দু’টো বাস থাকত। এখন কমতে কমতে ১২
থেকে ১৩ টি বাস চলে। কখন ছাড়ে কখন যায় তার কোনও সময় নেই। দুপুরে একঘণ্টা কখনও তার
বেশি সময় পর পাওয়া যায়। সন্ধ্যার পর বাস নেই। আরও একটি বাস এসডি ১৪ নতুন রাস্তা থেকে
তারাতলা পর্যন্ত চলে। এক সময় ১৭ থেকে ১৮ টি চলত। তা এখন ৪ টে গিয়ে ঠেকেছে। সব সময়
পাওয়া যায় না। বিধায়ক তমোনাশ ঘোষ যখন ছিলেন, তিনি বেশ কিছু সরকারি বাস চালু করেছিলেন।
সেই সবও উঠে গিয়েছে। পাশে দাঁড়ানো যুবক নিলাদ্রীশেখর রায় বলেন, মানুষ চায়, দ্রুত যেতে। ফলে
বাসের বদলে ফতেপুর থেকে ছোট টোটো আকারের গাড়ি চালু হয়েছে। বলরামপুর যেতে ২৫ টাকা
ভাড়া। এছাড়া ভাদুরা পর্যন্ত ডিজেল অটো চলে। তাতেও ভাড়া বেশি। এগুলিতে ভাড়া বেশি দিয়ে একের
পর এক গাড়ি বদল যাতায়াত সকলের পক্ষে সম্ভব কি? আপনারাই বলেন? প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন
নিলাদ্রীবাবু। আমরা এলাকার মানুষ চাই, ফলতা থেকে ধর্মতলা যাওয়ার জন্য আরও সরকারি ও
বেসরকারি বাস চালু হোক।

Most Popular

error: Content is protected !!