Friday, July 19, 2024
spot_img
spot_img
Homeজেলাদোকানে চুরি যাওয়া অনেক মোবাইল উদ্ধার সিসিটিভি ফুটেজ দেখে, ধৃত ৩

দোকানে চুরি যাওয়া অনেক মোবাইল উদ্ধার সিসিটিভি ফুটেজ দেখে, ধৃত ৩

প্রদীপকুমার সিংহ, সোনারপুর: দোকানে মোবাইল চুরির ঘটনায় পুলিশ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে। বেশ কিছু মোবাইল উদ্ধার হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার সোনারপুর থানার অন্তর্গত সোনারপুর রাজপুর এলাকায় একটি মোবাইলের দোকানে।সিসিটিভির ফুটেজ দেখে দোকান থেকে চুরি যাওয়া মোবাইলের হদিশ পেল সোনারপুর থানার পুলিশ ৷

দোকানে চুরি যাওয়া অনেক মোবাইল উদ্ধার সিসিটিভি ফুটেজ দেখে, ধৃত ৩

এই ঘটনায় এক মহিলা সহ গ্রেপ্তার করা হয়েছে মোট তিনজনকে। চুরি যাওয়া মোবাইল হাত ঘুরে বাংলাদেশে চলে যেত বলে জানা গিয়েছে ৷ বাংলাদেশে এইসব মোবাইল আরও বেশি দামে বিক্রি করা হত ৷ যারা এই চোরাচালান কারবারের সঙ্গে যুক্ত ছিল, হুন্ডির মাধ্যমে তাদের অ্যাকাউন্টে টাকা ঢুকত ৷

দোকানে চুরি যাওয়া অনেক মোবাইল উদ্ধার সিসিটিভি ফুটেজ দেখে, ধৃত ৩

এই ঘটনার তদন্ত নেমে সোনারপুরের খুড়িগাছি এলাকা থেকে কনিকা জানা, জলঙ্গি থেকে শশধর দাস ও মুর্শিদাবাদ থেকে নাইমুর রহমান নামে মোট তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ৷সোনারপুরের রাজপুর এলাকায় গত ৫ মার্চ ভোররাতে একটি মোবাইল দোকানে ওই চুরির ঘটনা ঘটেছিল। এই দোকান থেকে নামীদামি কোম্পানির ৮৪টির বেশি মোবাইল চুরি হয়ে যায়।

দোকানে চুরি যাওয়া অনেক মোবাইল উদ্ধার সিসিটিভি ফুটেজ দেখে, ধৃত ৩

এই ঘটনায় সোনারপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন মোবাইলের দোকানের মালিক। অভিযোগের ভিত্তিতে সোনারপুর থানার পুলিশ তদন্তে নামে৷ সিসিটিভি ফুটেজে দোকানের মধ্যে দু’জনকে চুরি করতে দেখা যায় ৷ চুরি যাওয়া মোবাইলের কয়েকটি ব্যবহার শুরু হওয়ায় তার আইএমইআই নম্বর ট্র্যাক করে জলঙ্গি এলাকা থেকে শশধরকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

দোকানে চুরি যাওয়া অনেক মোবাইল উদ্ধার সিসিটিভি ফুটেজ দেখে, ধৃত ৩

তার কাছ থেকে বেশ কয়েকটি মোবাইল উদ্ধার করা হয়৷ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জলঙ্গি থেকে নাইমুর রহমান নামে একজনকে গ্রেপ্তার করা হয় ৷ সেও এই চোরাচালান কারবারের সঙ্গে যুক্ত ছিল ৷ এদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ সোনারপুরের খুড়িগাছি এলাকায় কণিকা জানার বাড়িতে তল্লাশি চালালে সেখান থেকেও বেশ কিছু মোবাইল উদ্ধার করে পুলিশ।

দোকানে চুরি যাওয়া অনেক মোবাইল উদ্ধার সিসিটিভি ফুটেজ দেখে, ধৃত ৩

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মোবাইল চুরি করার পর তা কণিকার বাড়িতে মজুত করা হত ৷ তারপর সময় সুযোগ মতো মোবাইলগুলি পাচার করা হত মূলত মালদা ও মুর্শিদাবাদ এলাকায় ৷ সেখান থেকে পাচার করা হত বাংলাদেশে ৷ এই চক্রের সঙ্গে আরও অনেকেই যুক্ত আছে বলে মনে করছে পুলিশ ৷ অভিযুক্তদের জিজ্ঞাসাবাদ করে বাকিদের সন্ধান চালাচ্ছে পুলিশ।

Html code here! Replace this with any non empty raw html code and that's it.

Most Popular

error: Content is protected !!