Friday, April 19, 2024
spot_img
Homeজেলারাজ্য প্রাথমিকে যোগাসনে স্বর্ণপদক পেল কাকদ্বীপের বর্ণিতা ঘরামী

রাজ্য প্রাথমিকে যোগাসনে স্বর্ণপদক পেল কাকদ্বীপের বর্ণিতা ঘরামী

রবীন্দ্রনাথ সামন্ত, কাকদ্বীপ: রাজ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ক্রীড়া যোগাসন প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়ে স্বর্ণপদক পেয়েছে কাকদ্বীপের বর্ণিতা ঘরামী। ফলে খুশির হাওয়া। গত ৯ এবং ১০ মার্চ রাজ্য প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলির বাৎসরিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা হয়েছিল মুর্শিদাবাদ জেলার বহরমপুর স্টেডিয়ামে। সেখানে বর্ণিতা বালিকা খ বিভাগ যোগাসনে প্রথম এবং বালক খ বিভাগ যোগাসনে চয়ন মণ্ডল চতুর্থ স্থান অধিকার করেছে।

রাজ্য প্রাথমিকে যোগাসনে স্বর্ণপদক পেল কাকদ্বীপের বর্ণিতা ঘরামী

চয়নকে মানপত্র দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে বর্ণিতাকে স্বর্ণপদক সহ মানপত্র দেওয়া হয়েছে রাজ্য প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের পক্ষ থেকে। চয়নের বাড়ি কাকদ্বীপ নেতাজি গ্রাম পঞ্চায়েতে আর বর্ণিতার বাড়ি কাকদ্বীপ সূর্যনগর গ্রাম পঞ্চায়েতের ক্ষিরীশতলায়। বর্ণিতা সীতারামপুর জুনিয়র বেসিক স্কুলের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী।

রাজ্য প্রাথমিকে যোগাসনে স্বর্ণপদক পেল কাকদ্বীপের বর্ণিতা ঘরামী

বর্ণিতার বাবা প্রসেনজিৎ ঘরামি জানান, মেয়ে যোগাসনে রাজ্যে প্রথম হয়ে স্বর্ণপদক পেয়েছে, তা আমার কাছে খুবই গৌরবের। পরিবারসহ প্রতিবেশী সবাই খুশি ওর সাফল্যের জন্য। তিনি আরও বলেন, আমার তেমন কোনও আর্থিক সঙ্গতি নেই। স্থানীয় মাতঙ্গিনী যোগাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ওকে ভর্তি করেছিলাম। ওই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের প্রশিক্ষক অরিন্দম ঘাটা খুবই যত্ন সহকারে ওকে প্রশিক্ষণ দিয়েছে।

রাজ্য প্রাথমিকে যোগাসনে স্বর্ণপদক পেল কাকদ্বীপের বর্ণিতা ঘরামী

যার ফলে এই সাফল্য এসেছে বলে বর্ণিতার বাবা জানান। সরকারি সুযোগ-সুবিধা পাওয়া গেলে আরও ভালো হত। যার ফলে জাতীয় স্তরে যোগাসনে পারফর্ম করার সুযোগ পেতে পারে বলে বর্ণিতার বাবা জানান। মাতঙ্গিনী যোগাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের প্রশিক্ষক অরিন্দমবাবু জানান, গত বছর বর্ণিতা রাজ্য প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় যোগাসনে দ্বিতীয় হয়ে রৌপ্য পদক পেয়েছিল। এ বছর সে প্রথম হয়ে স্বর্ণপদক পেয়েছে।

রাজ্য প্রাথমিকে যোগাসনে স্বর্ণপদক পেল কাকদ্বীপের বর্ণিতা ঘরামী

আগামী দিনে বর্ণিতা আরও ভালো কিছু করে দেখাবে বলে তিনি মন্তব্য করেন। এ প্রসঙ্গে সীতারামপুর জুনিয়র বেসিক স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা শাশ্বতী রায়মণ্ডল বলেন, বর্ণিতা যোগাসনে স্বর্ণপদক পেয়েছে। এজন্য আমরা খুবই গর্বিত। পড়াশোনাতেও প্রতিবার এক থেকে তিনের মধ্যে রোল করে। পড়াশোনার পাশাপাশি যোগাসনে রাজ্যে প্রথম হয়ে আমাদের বিদ্যালয়কে গৌরবান্বিত করেছে। আগামী দিনে যাতে ভালো পারফর্ম করে, সেই আশীর্বাদ করছি।

Most Popular