Wednesday, February 28, 2024
Homeরাজ্যলোকসভা ভোটের মুখে অভিনেতা দেব কি সাংসদ পদ থেকে পদত্যাগ করতে পারেন?...

লোকসভা ভোটের মুখে অভিনেতা দেব কি সাংসদ পদ থেকে পদত্যাগ করতে পারেন? জল্পনা তুঙ্গে

অশোক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: অভিনেতা দেব এর হল টা কি? নিজের ঘাটাল লোকসভা কেন্দ্রের তিন তিনটি
প্রশাসনিক পদ থেকে ইস্তফা দিলেন? তাও ঠিক যখন ২০২৪ সালের লোকসভা ভোট যুদ্ধ যখন শুরু হতে যাচ্ছে। তিনি
কি তা হলে এবার আর ভোটে দাঁড়াতে ইচ্ছুক নন? এমন প্রশ্ন এখন শুধু ঘাটাল নয়, গোটা রাজ্য জুড়ে শুরু হয়েছে। গোটা
রাজ্য জুড়ে ভোটের দামামা বাজিয়ে তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এখন জেলা সফরে নেমে
পড়েছেন। ভোটারদের অভিমুখ বিজেপির দিক থেকে ঘুরিয়ে নি঩জের দলের দিকে আনার জন্য সরাসরি রাজনৈতিক তীর
ছুঁড়ছেন একের পর এক। সেই সময় মুখ্যমন্ত্রী ঘনিষ্ঠ দেবের দলনেত্রীর পাশে থেকে ভোটারদের অন্য ধরণের সংযমী
ও সহমর্মী বার্তা দেওয়ার কথা। যা তিনি গত লোকসভা ভোটের সময়ও করেছেন। কিন্তু এবার এমন কি হল যে,
এইভাবে ঘাটাল রবীন্দ্র শতবার্ষিকী মহাবিদ্যালয়ের সভাপতি পদ, ঘাটাল মহকুমা হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতির
চেয়ারম্যান এবং বীর সিংহ উন্নয়ন পর্ষদের ভাইস চেয়ারম্যান পদ থেকে নিজেকে সরিয়ে নিলেন। তিনি নিজেও জানেন,
তাঁর এই পদক্ষেপের জন্য বিতর্ক তৈরি হতে পারে। বিরোধী দল বিশেষ করে বিজেপি ফায়দা তুলতে ছাড়বে না। আর
সেটাই হয়েছে। ইতিমধ্যে অভিনেতা দেব এর পদত্যাগের পরই ঘাটালের বিভিন্ন জায়গাতে তাঁর নাম করে পোস্টার
দিয়েছে বিজেপি। তাতে লেখা দেব এর অনুগামীরা সমবায় ব্যাঙ্ক সহ বিভিন্ন জায়গা থেকে বেআইনিভাবে টাকা তুলেছে।
আর তা দেব এর নাম ভাঙিয়ে। বিষয়টি অভিনেতা দেব এর কাছে অভিযোগ আকারে এসেছে। এই বিষয়টি মোবাইলে তাঁকে
জানিয়েছেন বেশ কিছু নির্ভরযোগ্য সূত্র থেকে। কানাঘুষো শোনা যাচ্ছে যে, তাঁকে এও বলা হয়েছে, এ নিয়ে তদন্ত হতে
পারে। তাতে অভিনেতাকেও ডাকা হতে পারে। রাজনৈতিক মহল বলছে, এটা দেব এর ভিতর আতঙ্ক তৈরি করেছে। শেষে
তাঁকে চোর বদনাম নিতে না হয়, এই আশঙ্কা এখন দেবকে কুরে কুরে খাচেছ। এমনিতে কয়েকবছর আগে তাঁর অভিনীত
ছবিতে গোরু পাচারের টাকা বিনিয়োগ হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছিল। তা নিয়ে সিবিআই এর ডাকে তাঁকে যেতে হয়েছে।
এটা নিয়ে একটা চাপা ভয় রয়েছে। তার ভিতর নতুন করে তাঁকে জড়িয়ে তাঁর অনুগতদের আর্থিক কেলেঙ্কারির বিষয়টি
কোনও ভাবে তিনি মেনে নিতে পারছেন না। সেই কারণে প্রশাসনিক পদ থেকে এই সরে যাওয়া। অন্যদিকে,
এর ভিতর বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর একটি বক্তব্য এই বিষয়কে আরও উসকে দিয়েছে একধাপ। তা হল,
অভিনেতা দেব ওই তিনটি শুধু নয়, সাংসদ পদ থেকে পদত্যাগ করবেন। যা এখন সময়ের অপেক্ষা। এমন মন্তব্য
করেছেন শুভেন্দু। তাতে করে বাংলা সিনেমার জনপ্রিয় নায়ক দেব কে ঘিরে তৃণমূল অন্দরে ও বিরোধী দলের ভিতরও
আরও জলঘোলা শুরু হয়েছে। বিজেপির একটি মহল বলছে, দেব এবার বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন। এমন একটা গোপন
পরিকল্পনাও চলছে। তবে দেব এই সব বিষয় নিয়ে এখনও কোথাও কোনও মন্তব্য করেননি। আসলে তবে বিগত
কয়েকবছর ধরে তিনি তাঁর ঘনিষ্ঠ মহলে রাজনৈতিক জীবন নিয়ে অসন্তোষের কথা বলে আসছেন। তিনি এক সময় চাপে
পড়ে অভিনয়ের শীর্ষে থাকা অবস্থায় তৃণমূলের হয়ে ঘাটাল থেকে সাংসদ পদে দাঁড়ান। পর পর দু’ বার জেতেনও। যদিও
লোকসভায় তাঁর হাজিরা থেকে শুরু করে কাজের পারফরমেন্স খুব ভালো নয়। কারণ, তিনি মনে মনে রাজনীতির থেকে
অভিনয়কে সব সময় অগ্রাধিকার দিয়ে এসেছেন। ঘনিষ্ঠদের বলছেন, রাজনীতি ভালো লাগে না। বাধ্য হয়ে আছি। সুযোগ
পেলে ছেড়ে দেবে। বরং অভিনয়ে আরও বেশি মনযোগ দিতে চাই। তাঁর ঘনিষ্ঠ মহল সূত্র বলছে, বেশ কিছু দিন ধরে
তৃণমূলের একটি অংশের সঙেগ তাঁর বনিবনা নেই। বিশেষ করে মিঠুন চক্রবর্তীর সঙেগ তাঁর ঘনিষ্ঠতা ও ছবি করা
নিয়ে টাগ অব ওয়ার চলছিল। এই কারণে নন্দনে তাঁর ছবি দেখানো হয়নি। যদিও প্রকাশ্যে তিনি কখনও তা নিয়ে কথা
বলেননি। কিন্তু তা কোনও ভাবে মেনে নিতে পারেননি। সেই সব ঘটনা প্রবাহ কি দেব কে রাজনীতি থেকে সরে দাঁড়ানোর
দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে? তবে সময় এখন শেষ কথা বলবে।

Most Popular

error: Content is protected !!