Friday, April 19, 2024
spot_img
Homeরাজ্যএক কোটি ছাপিয়ে যাবে গঙ্গাসাগরে পুণ্যার্থীর সংখ্যা: মমতা

এক কোটি ছাপিয়ে যাবে গঙ্গাসাগরে পুণ্যার্থীর সংখ্যা: মমতা

স্টাফ রিপোর্টার: গঙ্গাসাগর মেলাকে জাতীয় মেলার স্বীকৃতি দেওয়ার দাবি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।বৃহস্পতিবার নবান্ন থেকে সাংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেন, “গঙ্গাসাগর মেলায় আমরা প্রায় ২৫০ কোটি টাকা এবারও খরচ করেছি। কুম্ভমেলা স্বীকৃতি পেয়েছে আমরা খুশি।

এক কোটি ছাপিয়ে যাবে গঙ্গাসাগরে পুণ্যার্থীর সংখ্যা: মমতা

কুম্ভ মেলা তো অনেক দিন পর পর হয়, প্রতি বছর হয় না। কিন্তু গঙ্গাসাগর প্রতি বছর হয়। সুন্দরবনের প্রত্যন্ত অঞ্চলে একটি দ্বীপের উপর গঙ্গাসাগর অবস্থিত। জল পেরিয়ে প্রত্যেকটা মানুষকে যেতে হয়। এক কোটি লোক সেখানে যাতায়াত করেন। সংখ্যাটা যদি বছরের হিসেবে ধরা হয়, তাহলে তো অনেক।

এক কোটি ছাপিয়ে যাবে গঙ্গাসাগরে পুণ্যার্থীর সংখ্যা: মমতা

গত বছরও আশি লাখের উপর মানুষ এসেছিলেন। এবছরও আমাদের ধারণা, যেহেতু কুম্ভ নেই, সংখ্যাটা এক কোটির উপর ছাপিয়ে যাবে। তারা যদি সাহায্য পেতে পারে, বাংলা কেন সাহায্য পাবে না? বাংলার মেলা কেন জাতীয় মেলার স্বীকৃতি পাবে না? সেই নিয়েও আজ আমি চিঠি পাঠিয়েছি।”

এক কোটি ছাপিয়ে যাবে গঙ্গাসাগরে পুণ্যার্থীর সংখ্যা: মমতা

পাশাপাশি তিনি বলেন, “বিভিন্ন তীর্থস্থানকে কেন্দ্র করে উন্নয়নের জন্য আমরা ৭০০ কোটি টাকার উপর খরচ করেছি। কালীঘাট মন্দির শুধু রিলায়েন্স একা করছে না। ওনারা শুধু সোনার চূড়াটা করছেন। আর ভিতরের কিছু অংশের কাজ করছেন। আমরা ১৬৫ কোটি টাকা খরচ করেছি।

এক কোটি ছাপিয়ে যাবে গঙ্গাসাগরে পুণ্যার্থীর সংখ্যা: মমতা

ওদের খরচটা হল ৩৫ কোটি টাকা। কীভাবে হকারদের সরিয়ে, তাঁদের অ্যাডজাস্ট করে কাজটা করা হচ্ছে।দিঘায় হিডকো জগন্নাথ ধাম করছে। এটাতেও আমরা ২০৫ কোটি টাকা খরচ করছি। এছাড়া কচুয়া-চাকলায় ৯ কোটি ও ১৫ কোটি টাকা দিয়েছি। ইসকেন জন্য ৭০০ একর জমির অনুমতি দিয়েছি আমরা।

এক কোটি ছাপিয়ে যাবে গঙ্গাসাগরে পুণ্যার্থীর সংখ্যা: মমতা

তারকনাথ মন্দির, মাহেশের উন্নতি করেছি আমরা। তারাপীঠের উন্নয়ন করা হয়েছে। ফুল্লরা মন্দিরের জন্য এক কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে। বক্রেশ্বর উষ্ণ প্রস্রবণেও টাকা দেওয়া হয়েছে। জল্পেশ শিব মন্দিরের জন্য ৩১.৭ কোটি টাকা খরচ করা হয়েছে।”

Most Popular