Tuesday, February 27, 2024
Homeদেশলোকসভায় বহিষ্কৃত মহুয়া

লোকসভায় বহিষ্কৃত মহুয়া

টাকার বিনিময়ে প্রশ্ন কাণ্ডে খারিজ হল মহুয়া মৈত্রের লোকসভার সাংসদ পদ।এথিক্স কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে, লোকসভায় ভোটাভুটিতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।গত ১৫ অক্টোবর কৃষ্ণনগরের তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্রের বিরুদ্ধে ‘ঘুষের বিনিময়ে প্রশ্ন’ তোলার অভিযোগ এনেছিলেন বিজেপি সাংসদ নিশিকান্ত দুবে।

লোকসভায় বহিষ্কৃত মহুয়া

মহুয়ার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ কতটা সত্যি, তা খতিয়ে দেখতে এথিক্স কমিটিকে দায়িত্ব দেন লোকসভার স্পিকার।গত ৪ ডিসেম্বর সংসদের শীতকালীন অধিবেশনের প্রথম দিনই মহুয়া মৈত্রের বিরুদ্ধে এথিক্স কমিটির রিপোর্ট লোকসভায় পেশ হওয়ার কথা ছিল৷ যদিও শেষ মুহূর্তে সেই প্রক্রিয়া পিছিয়ে যায়৷

লোকসভায় বহিষ্কৃত মহুয়া

তবে শুক্রবারই লোকসভায় পেশ করা হয়য় মহুয়া মৈত্রকে নিয়ে তৈরি এথিক্স কমিটির রিপোর্ট।রিপোর্টে টাকার বিনিময়ে সংসদে প্রশ্ন করার অভিযোগ রয়েছে তৃণমূল সাংসদের বিরুদ্ধে। এবং তাঁকে সাংসদ পদ থেকে বহিষ্কারের সুপারিশ করা হয়।রিপোর্টে মহুয়ার বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপের সুপারিশ করেছে লোকসভার এথিক্স কমিটি।

লোকসভায় বহিষ্কৃত মহুয়া

রিপোর্টে বলা হয়েছে, মহুয়া যে অবৈধ ভাবে টাকা নিয়েছেন, তা প্রতিষ্ঠিত সত্য। সেটি অস্বীকার করার জায়গাই নেই। সাংসদ হিসাবে তাঁর আচরণ অনৈতিক। সেই কারণে লোকসভা থেকে তাঁকে বহিষ্কৃত করা উচিত বলে মনে করে এথিক্স কমিটি। পাশাপাশি তিনি যে অপরাধ করেছেন, সরকারের তরফে তার আইনি তদন্তও করা দরকার।

লোকসভায় বহিষ্কৃত মহুয়া

যদিও রিপোর্টটি পেশের পরই চূড়ান্ত হট্টগোল শুরু হয়ে যায়। যার জেরে অধিবেশন দুপুর দুটো পর্যন্ত মূলতুবি করে দিতে হয়। তবে অধিবেশন ফের শুরু হতেই মহুয়া ইস্যুতে ক্ষোভ প্রকাশ করেন স্পিকার। বলেন, সংসদের মর্যাদাহানি হোক, এমন কোনও বিষয়ই মেনে নেওয়া হবে না। প্রয়োজনে অনেক কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে হয়। একইসঙ্গে এনিয়ে আলোচনার জন্য আধঘণ্টা সময় বেঁধে দেন ওম বিড়লা।

লোকসভায় বহিষ্কৃত মহুয়া

স্পিকারের ঘোষণার পরই সুদীপ বন্দ্য়োপাধ্যায় আরও সময় দেওয়ার আর্জি জানান। এথিক্স কমিটির রিপোর্টের কপি চেয়ে স্পিকারকে চিঠি লেখেন সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। রিপোর্ট পড়ার জন্য চাওয়া হয় ৪৮ ঘণ্টা সময়। মহুয়াকে যেন বলতে দেওয়া হয়, তার আর্জি জানান সুদীপ বন্দ্য়োপাধ্য়ায়৷তৃণমূল সাংসদ কল্যণ বন্দ্যোপাধ্যায় আবার মহুয়াকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেওয়ার আবেদন করেন।

লোকসভায় বহিষ্কৃত মহুয়া

যদিও তা কানে তোলেননি স্পিকার। মহুয়ার হয়ে এদিন একে একে সওয়াল করেন কংগ্রেস সাংসদ অধীররঞ্জন চৌধুরী, মণীশ তিওয়ারি, তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়-সহ ইন্ডিয়া জোটের সাংসদরা। মহুয়ার মৌলিক অধিকার খর্ব করার অভিযোগও তোলেন তাঁরা।অধীর চৌধুরী লোকসভায় স্পিকারের উদ্দেশ্য়ে বলেন, ‘‘কারও বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ থাকলে, তাঁকে বলার সুযোগ দেওয়া উচিত।

লোকসভায় বহিষ্কৃত মহুয়া

এই সংক্রান্ত বিবেচনা আমি আপনার উপরেই ছাড়ছি।এত কম সময়ে এত বড় রিপোর্ট পড়ে ফেলা সম্ভব নয়। ভাল করে পড়ে এটা নিয়ে চর্চা করা উচিত। আদালতেও কারও সাজা হলে বিচারক আসামির বক্তব্য শোনেন।’’ কংগ্রেস সাংসদ মনীশ তিওয়ারি জানান, ‘এথিক্স কমিটি শুধু সুপারিশ করতে পারে। কী সাজা হবে, তা তারা ঠিক করে দিতে পারে না।’

লোকসভায় বহিষ্কৃত মহুয়া

পালটা যুক্তি দেন বিজেপি সাংসদরাও।দীর্ঘ প্রায় এক ঘণ্টার আলোচনার পর সংসদের নিয়ম মেনে ধ্বনি ভোটে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে মহুয়া মৈত্রের সাংসদ পদ বাতিল করা হচ্ছে। যদিও ধ্বনি ভোটের সময় ওয়াকআউট করে গিয়েছিলেন বেশিরভাগ বিরোধী সাংসদই।

লোকসভায় বহিষ্কৃত মহুয়া

উল্লেখ্য, মহুয়া মৈত্র ২০১৯ সালে লোকসভার সাংসদ হন। কৃষ্ণনগর উত্তর থেকে সাংসদ হয়েছিলেন। তবে এবার মহুয়া মৈত্রের পদক্ষেপ কি হয় সেদিকেই নজর সবার। সূত্রে খবর, সম্ভবত সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হতে পারেন তৃণমূল নেত্রী।

Most Popular

error: Content is protected !!