Friday, April 19, 2024
spot_img
Homeরাজ্যতল্লাশিতে বিধায়কের বাড়িতে ২৮ লক্ষ উদ্ধার, জিজ্ঞাসাবাদ ২ কাউন্সিলারকেও

তল্লাশিতে বিধায়কের বাড়িতে ২৮ লক্ষ উদ্ধার, জিজ্ঞাসাবাদ ২ কাউন্সিলারকেও

এর আগে প্রাক্তন মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্য়ায়ের বান্ধবী অর্পিতা মুখোপাধ্য়ায়ের ফ্ল্যাট থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা উদ্ধার করেছিল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। এবার ডোমকলের বিধায়ক জাফিকুল ইসলামের অফিসে ও বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে উদ্ধার হল লক্ষ লক্ষ টাকা। জাফিকুল মানিক ভট্টাচার্য ঘনিষ্ঠ বলে সূত্রের খবর। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই জাফিকুলের বাড়িতে তল্লাশি শুরু করে সিবিআই। বিধায়ক বর্তমানে বিধানসভার অধিবেশনের জন্য কলকাতায় রয়েছেন।

তল্লাশিতে বিধায়কের বাড়িতে ২৮ লক্ষ উদ্ধার, জিজ্ঞাসাবাদ ২ কাউন্সিলারকেও

সিবিআই কর্তারা জাফিকুলের বাড়িতে ঢুকতেই কেন্দ্রীয় বাহিনীকে দিয়ে বাড়ির গোটা চত্বর ঘিরে ফেলা হয়।সিবিআই সূত্রে দাবি করা হয়েছে, সাড়ে ছয় ঘণ্টা টানা তল্লাশির পর বিধায়কের বাড়ি থেকে উদ্ধার হয় বিপুল নগদ টাকা।এরপর স্থানীয় একটি বেসরকারি ব্যাঙ্ক থেকে টাকা গোনার মেশিন নিয়ে আসেন তদন্তকারীরা। সিবিআই সূত্রে খবর, প্রথমে জাফিকুলের ‘বেডরুম’ থেকেও প্রায় ২৪ লাখ টাকা উদ্ধার হয়েছে।

তল্লাশিতে বিধায়কের বাড়িতে ২৮ লক্ষ উদ্ধার, জিজ্ঞাসাবাদ ২ কাউন্সিলারকেও

এ ছাড়াও বিধায়কের স্ত্রীর কাছ থেকে আরও ৪ লক্ষ টাকা উদ্ধার করা হয়। সংসারের খরচ চালানোর জন্য ওই টাকা বিধায়ক ঘরনির কাছে ছিল বলেই দাবি। যদিও এ ব্যাপারে সিবিআইয়ের তরফে প্রকাশ্যে বা সরকারি ভাবে কিছু জানানো হয়নি।তবে বিধায়কের পরিবার সূত্রে খবর, সম্প্রতি কিছু সম্পত্তি বিক্রি করা হয়েছে। সেই টাকাই তাঁর বাড়িতে ছিল।

তল্লাশিতে বিধায়কের বাড়িতে ২৮ লক্ষ উদ্ধার, জিজ্ঞাসাবাদ ২ কাউন্সিলারকেও

এ ছাড়াও বিধায়কের বিএড কলেজের বিভিন্ন কর্মচারীদের বেতন বাবদ কিছু টাকা বাড়িতে ছিল। উদ্ধার হওয়া বেশির ভাগ টাকার উৎসের হিসাব রয়েছে তাদের কাছে। পরিবার সূত্রে দাবি, উদ্ধার হওয়া কিছু টাকার নথি জাফিকুলের ভাই জাহাঙ্গি বিশ্বাসের ছেলে মেহবুব আলমের কাছে রয়েছে। এর পর তদন্তকারীরা মেহবুবের সঙ্গেও যোগাযোগ করেন। মেহবুবও কিছু নথি নিয়ে তদন্তকারীদের সামনে হাজির হন।

তল্লাশিতে বিধায়কের বাড়িতে ২৮ লক্ষ উদ্ধার, জিজ্ঞাসাবাদ ২ কাউন্সিলারকেও

পরিবার সূত্রে খবর, সেই সব নথিই খতিয়ে দেখছেন সিবিআই আধিকারিকেরা। সিবিআই সূত্রেও খবর, জাফিকুলের স্ত্রী বীণা সরকারের ঘরে তল্লাশি চালিয়ে বেশ কিছু সোনার গয়নার হদিস মিলেছে। সূত্রের দাবি, বীনা তদন্তকারীদের জানিয়েছেন, কলেজের অধ্যক্ষা হিসেবে তিনি যে বেতন পান, সেখান থেকেই এই সোনা কেনা। যদিও সেই সংক্রান্ত কোনও নথি এখনও তিনি দেখাতে পারেননি বলে তদন্তকারীদের সূত্রে দাবি।

তল্লাশিতে বিধায়কের বাড়িতে ২৮ লক্ষ উদ্ধার, জিজ্ঞাসাবাদ ২ কাউন্সিলারকেও

এদিকে দলীয় বিধায়কের বাড়ি থেকে টাকা উদ্ধার নিয়ে ইতিমধ্যেই নিজেদের অবস্থান জানিয়েছে শাসকদল তৃণমূল। এ ব্যাপারে দলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেন, ‘‘কোনও কোনও সূত্রে বলা হচ্ছে, জাফিকুলের বাড়ি থেকে টাকা পাওয়া গিয়েছে। সেই টাকা বৈধ না অবৈধ, সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় এখনও আসেনি। যদি ব্যবসার টাকা হয়, তা হলে তার বৈধতা নিয়ে কার কী বলার আছে?

তল্লাশিতে বিধায়কের বাড়িতে ২৮ লক্ষ উদ্ধার, জিজ্ঞাসাবাদ ২ কাউন্সিলারকেও

আর যদি অবৈধ হয়, তা হলে দলের অবস্থান আগেই অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়ে দিয়েছেন জিরো টলারেন্স।’’ কুণাল ঘোষের এই বক্তব্যের পালটা দিয়ে বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার জানিয়েছেন, ‘‘ওই টাকা বৈধ বলে কি আদৌ তৃণমূলও বিশ্বাস করে? সাধারণ কর্মীরা দূরের কথা, যিনি বলেছেন, তিনিও কি তা বিশ্বাস করেন? সিবিআই একটা বাড়িতে গিয়েছে। এত টাকা, গয়না পেয়েছে।

তল্লাশিতে বিধায়কের বাড়িতে ২৮ লক্ষ উদ্ধার, জিজ্ঞাসাবাদ ২ কাউন্সিলারকেও

যাঁর বাড়িতে যাবে, তাঁর বাড়িতেই টাকা পাবে। তৃণমূলের মুখপাত্ররা অপেক্ষা করুন, এই রকম প্রতিক্রিয়া আরও অনেকবার দিতে হবে।’’ এদিন বিধায়কদের পাশাপাশি রাজ্যের আরও কয়েকটি জায়গায় হানা দিয়েছিল সিবিআই।তাঁদের মধ্যে রয়েছেন তৃণমূল বিধায়ক অদিতি মুন্সী তথা বিধাননগর পুরসভার কাউন্সিলর দেবরাজ চক্রবর্তী এবং কলকাতা পুরসভার কাউন্সিলর বাপ্পাদিত্য দাশগুপ্তের বাড়ি।

তল্লাশিতে বিধায়কের বাড়িতে ২৮ লক্ষ উদ্ধার, জিজ্ঞাসাবাদ ২ কাউন্সিলারকেও

এদিন দেবরাজের দু’টি বাড়িতে যান তাঁরা।তল্লাশি চলে অদিতি মুন্সীর স্টুডিয়োর ঠিকানায়ও। তবে প্রায় ৬ ঘণ্টা তল্লাশির পর ওই দু’টি ঠিকানা থেকে বেরিয়ে যায় সিবিআই। এই তল্লাশি প্রসঙ্গে দেবরাজ বলেন, “আমি ছিলাম না। মা ফোন করেন। প্রতিনিধি দলে ছিলেন সাতজন। সার্চ ওয়ারেন্ট ছিল। সার্চ করেছেন প্রতিটি ফ্লোর। উপযুক্ত প্রমাণ পাননি। আমার, আমার পরিবার, সংস্থার আয় সংক্রান্ত তথ্য নেয়।

তল্লাশিতে বিধায়কের বাড়িতে ২৮ লক্ষ উদ্ধার, জিজ্ঞাসাবাদ ২ কাউন্সিলারকেও

নিয়োগ দুর্নীতির তদন্তে এসেছিলেন। আমার দুটি বাড়িতে তল্লাশি চলে। আমি বলেছি আগামিদিনেও তদন্তে সহযোগিতার প্রয়োজন হলে করব। কিছু নথিপত্র স্ক্রুটিনির জন্য নিয়ে গিয়েছে। সার্চ লিস্ট দিয়ে গিয়েছে।” আত্মবিশ্বাসের সুরে তিনি বলেন, “প্রাথমিক নিয়োগ সম্পর্কিত কোনও নথি আমার কাছে পায়নি। পাওয়ার কথাও নয়।”

তল্লাশিতে বিধায়কের বাড়িতে ২৮ লক্ষ উদ্ধার, জিজ্ঞাসাবাদ ২ কাউন্সিলারকেও

ঘাসফুল শিবিরের কাউন্সিলর বলেই তাঁকে কেন্দ্রীয় এজেন্সি দিয়ে হেনস্তা করা হচ্ছে, দাবি দেবরাজের।পাশাপাশি পার্থ চট্টোপাধ্যায় ‘ঘনিষ্ঠ’ তৃণমূল কাউন্সিলর বাপ্পাদিত্য দাশগুপ্তর বাড়িতেও প্রায় ৫ ঘণ্টা তল্লাশি চলেছে বলে সিবিআই সূত্রে খবর।তবে শুধু মাত্র দেবরাজ কিংবা বাপ্পাদিত্য নয়,

তল্লাশিতে বিধায়কের বাড়িতে ২৮ লক্ষ উদ্ধার, জিজ্ঞাসাবাদ ২ কাউন্সিলারকেও

এদিন নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় বৃহস্পতিবার শহরের চার থেকে পাঁচটি জায়গায় তল্লাশি চালাচ্ছেন কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার গোয়েন্দারা। সিবিআই সূত্রে খবর, প্রাথমিক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় তাঁদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট কিছু তথ্য প্রমাণ এসেছে। তার ভিত্তিতেই তল্লাশি ও জিজ্ঞাসাবাদ। সার্চ ওয়ারেন্ট দেখিয়েই চলছে তল্লাশি।

Most Popular