Tuesday, April 16, 2024
spot_img
Homeকলকাতাপার্থ-বালু-কেষ্টর সাসপেন্ড চ্যালেঞ্জ শাহর, হুঁশিয়ারি সিএএ লাগুর

পার্থ-বালু-কেষ্টর সাসপেন্ড চ্যালেঞ্জ শাহর, হুঁশিয়ারি সিএএ লাগুর

স্টাফ রিপোর্টার: গত ২০১৯-এর লোকসভা ভোটে বাংলায় প্রচারে এসে মেরুকরণের অঙ্কেই জোর দিয়েছিলেন বিজেপি নেতারা। ২০২১ সালের বিধানসভা ভোটে তা আরও শানিত করেছিলেন তাঁরা। আর একটি লোকসভা ভোটের আগে বাংলায় এসে বুধবার ধর্মতলার সভা থেকে সেই পুরনো অস্ত্রেই শান দিতে চাইলেন অমিত শাহ।

পার্থ-বালু-কেষ্টর সাসপেন্ড চ্যালেঞ্জ শাহর, হুঁশিয়ারি সিএএ লাগুর

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ভাষণে জায়গা পেল সিএএ, অনুপ্রবেশ-সহ নানা শব্দবন্ধ।নেতা-মন্ত্রীর ঘর থেকে নোটের বান্ডিল উদ্ধার নিয়েও খোঁচা দিলেন তিনি।সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় অমিত শাহ বলেন, “যে বাংলা সাহিত্য-বিজ্ঞান-কলা-স্বাধীনতা আন্দোলনে গোটা দেশকে নেতৃত্ব দিত সেই বাংলাকে আজ সবথেকে পিছনে আনার কাজ দিদি করেছেন। দিদিকে বাংলাকে বরবাদ করে দিয়েছেন।

পার্থ-বালু-কেষ্টর সাসপেন্ড চ্যালেঞ্জ শাহর, হুঁশিয়ারি সিএএ লাগুর

জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, অনুব্রত মণ্ডল, পার্থ চট্টোপাধ্যায়, গরু চুরি হোক, কয়লা চুরি হোক, নিয়োগ দুর্নীতি হোক, বাংলার মানুষের টাকা এরা খেয়েছে।”এরপরই মমতাকে নিশানা করে শাহ বলেন, “মমতাকে বলছি হিম্মত থাকলে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, অনুব্রত মণ্ডল, পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে তৃণমূল কংগ্রেস থেকে সাসপেন্ড করে দেখান। আসলে ওদের সাসপেন্ড করতে পারবে না। সাহস নেই। যে দল দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত তাঁরা কীভাবে রাজ্য়ের উন্নতি করবে?”

পার্থ-বালু-কেষ্টর সাসপেন্ড চ্যালেঞ্জ শাহর, হুঁশিয়ারি সিএএ লাগুর

শাহের কথায়, “আমি গুজরাট থেকে আসছি, কিন্তু কোনও দিন রাজ্যের কোনও নেতার বাড়ি থেকে নোটের তাড়া উদ্ধার হতে দেখিনি। বাংলা একসময় পথ দেখাত দেশকে। এখন দুর্নীতিতে ডুবেছে বাংলা।” প্রসঙ্গত, নিয়োগ কেলেঙ্কারি থেকে গরু, কয়লা পাচার মামলায় শ্রীঘরে দিন কাটছে তৃণমূলের একের পর এক হেভিওয়েট মন্ত্রী, আমলাস নেতাদের। বাংলায় নয় একেবারে দিল্লির তিহারে ঠাঁই হয়েছে অনুব্রতর। জোরকদমে তদন্ত চালাচ্ছে ইডি-সিবিআই।

পার্থ-বালু-কেষ্টর সাসপেন্ড চ্যালেঞ্জ শাহর, হুঁশিয়ারি সিএএ লাগুর

শাহের দাবি, মোদী সরকার বাংলার জন্য কোটি কোটি পাঠালেও তৃণমূলের জন্যই তা আর যাচ্ছে না বাংলার গরিব মানুষের কাছে।শুধু পার্থ-কেষ্ট-বালু নয়, নাম না করে সাংসদ মহুয়া মৈত্রকেও আক্রমণ করেন শাহ। বলেন, “উপহার-উপঢৌকন নিয়ে প্রশ্ন করা হচ্ছে। ওঁরা সংসদের পবিত্রতা নষ্ট করেছে।” পাশাপাশি অনুপ্রবেশ নিয়েও তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরব হন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।তিনি বলেন, ‘‘বাংলায় বেলাগাম অনুপ্রবেশ চলছে। অসমে বিজেপির সরকার রয়েছে।

পার্থ-বালু-কেষ্টর সাসপেন্ড চ্যালেঞ্জ শাহর, হুঁশিয়ারি সিএএ লাগুর

সেখানে অনুপ্রবেশ বন্ধ হয়ে গিয়েছে। আর বাংলায় কী হচ্ছে? সমাজমাধ্যমে বিজ্ঞাপন দিয়ে বলা হচ্ছে, বাংলাদেশ থেকে যারা আসছে, তাদের ভোটার কার্ড, আধার কার্ড করে দেওয়া হবে। কিন্তু রাজ্য পুলিশ চুপ করে বসে রয়েছে।’’ যদিও পাল্টা দিয়েছে তৃণমূলও। তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেন, ‘‘অনুপ্রবেশ হলে তা সীমান্ত দিয়ে হয়। সীমান্ত সামলায় অমিত শাহের বিএসএফ। তা হলে তো ওঁর আগে নাকখত দেওয়া উচিত!’’

পার্থ-বালু-কেষ্টর সাসপেন্ড চ্যালেঞ্জ শাহর, হুঁশিয়ারি সিএএ লাগুর

বক্তৃতায় আরও এক বার নাগরিকত্ব সংশোধন আইন (সিএএ) বলবৎ করার কথা বলেছেন শাহ। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘‘সিএএ দেশের আইন। তা বলবৎ হবেই। তাকে কেউ রুখতে পারবে না।’’ সেই সঙ্গে শাহ আরও বলেন, ‘‘সিএএ চালু হলে বাংলাদেশ থেকে এ পারে আসা কোনও হিন্দুর কোনও সমস্যা হবে না। এই মাটিতে আপনার-আমার যতটা অধিকার, তাঁদেরও ততটাই অধিকার।’’

পার্থ-বালু-কেষ্টর সাসপেন্ড চ্যালেঞ্জ শাহর, হুঁশিয়ারি সিএএ লাগুর

পাল্টা তৃণমূলের তরফে কুণাল বলেন, ‘‘এই সব কথাই অমিত শাহ-সহ বিজেপি নেতারা ২০২১ সালের বিধানসভা ভোটের সময় ডেইলি প্যাসেঞ্জারি করতে করতে বলতেন। আমার মনে হয়, সেই পুরনো চিরকুট পকেটে নিয়ে তিনি এসেছিলেন। তাই ফের ভাঙা রেকর্ড বাজিয়ে গিয়েছেন।’’

পার্থ-বালু-কেষ্টর সাসপেন্ড চ্যালেঞ্জ শাহর, হুঁশিয়ারি সিএএ লাগুর

মমতা নিশানা করে শাহ বলেন, “আপনি সন্ত্রাস করে জিতেছেন। তাও আমরা ৭৭ টি আসন পেয়েছি। আমরা ২০২৬ সালে দুই তৃতীয়াংশ ভোট নিয়ে জিতব।” এরপরই ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের প্রসঙ্গ টেনে বলেন, “চব্বিশের ভোটে মানুষকে অনুরোধ করব এত আসন আমাদের দিন যাতে মোদীজি বলেন আমি প্রধানমন্ত্রী হয়েছি বাংলার জন্য।”

পার্থ-বালু-কেষ্টর সাসপেন্ড চ্যালেঞ্জ শাহর, হুঁশিয়ারি সিএএ লাগুর

তৃণমূলের সঙ্গেই তুলোধনা করেন বামেদেরও। বলেন, “কমিউনিস্ট, তৃণমূল বাংলার ভাল করতে পারে না। বাংলার ভালো, সোনার বাংলা তৈরির কাজ করবে শুধুমাত্র বিজেপি।”

Most Popular