Sunday, May 19, 2024
spot_img
Homeজেলাক্যানিংয়ে সাপে কামড়ানো জখমকে ওঝার কাছে নিয়ে গিয় সময় নষ্ট, হাসপাতালে মৃত্যু

ক্যানিংয়ে সাপে কামড়ানো জখমকে ওঝার কাছে নিয়ে গিয় সময় নষ্ট, হাসপাতালে মৃত্যু

প্রদীপকুমার সিংহ, বারুইপুর: গ্রামে এখনও সাপে কামড়ালে জখমকে গুনিন ও ওঝার কাছে নিয়ে যান লোকজন। গ্রামের মানুষের বিশ্বাস, গুনিন ও ওঝা সেই সাপে কামড়ানো মানুষকে ভালো করে তোলে। এমনই এক ঘটনা ঘটেছে ক্যানিংয়ে। সাপের কামড়ে জখমকে ওঝার কাছে নিয়ে গিয়ে ঝাড়ফুঁক করার জেরে মৃত্যু হল এক ব্যাক্তির।

ক্যানিংয়ে সাপে কামড়ানো জখমকে ওঝার কাছে নিয়ে গিয় সময় নষ্ট, হাসপাতালে মৃত্যু

মৃতের নাম নরেশ শিকারি (৩৮)। বাড়ি দক্ষিণ ২৪ পরগনার ক্যানিং থানার অন্তর্গত রায়পুর পূর্ব শিকারি পাড়া অঞ্চলে। অভিযোগ, ১৮ ঘণ্টা ধরে ওঝার কাছে ঝাড়ফুঁক চলার পর ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাঁকে। বৃহস্পতিবার রাতে তাঁর মৃত্যু হয়।

ক্যানিংয়ে সাপে কামড়ানো জখমকে ওঝার কাছে নিয়ে গিয় সময় নষ্ট, হাসপাতালে মৃত্যু

পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, নরেশ শিকারি গত শনিবার বিকালে বাগানে সবজি তুলতে গেলে তাঁর বাঁ পায়ে সাপে কামড় দেয়। তাঁর স্ত্রী ও শ্যালক নিয়ে যান স্থানীয় এক ওঝার কাছে। সেখানে কয়েক ঘণ্টা কাটে ঝাড়ফুঁকে। পরিবারের অন্য মানুষরা জানতে পারলে রবিবার তাঁকে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে আসেন।

ক্যানিংয়ে সাপে কামড়ানো জখমকে ওঝার কাছে নিয়ে গিয় সময় নষ্ট, হাসপাতালে মৃত্যু

ক্যানিং হাসপাতালে চিকিৎসকরা নরেশ শিকারির ডায়ালিসিস করতে হবে বলে মনে করেন। তাই সোমবার চিকিৎসক বারুইপুর মহকুমা হাসপাতালে রেফার করেন। সেখানে বৃহস্পতিবার রাতে নরেশ শিকারির মৃত্যু হয়। এই ঘটনায় পরিবারের লোকজন ওঝার বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফেটে পড়েন।

ক্যানিংয়ে সাপে কামড়ানো জখমকে ওঝার কাছে নিয়ে গিয় সময় নষ্ট, হাসপাতালে মৃত্যু

বারুইপুর থানায় খবর গেলে পুলিশ নরেশ শিকারির দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। সরকার ও স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা থেকে বারবার সচেতন করা হলেও গ্রামের একাংশ এখনও সাপে কামড়ানো জখমক ওঝা বা গুনিনের কাছে নিয়ে গিয়ে বিপদ বাঁধান।

Most Popular

error: Content is protected !!