Tuesday, April 16, 2024
spot_img
Homeরাজ্যকোথায় হৈমন্তী? অভিনেত্রীকে ঘিরে রহস্যের ঘনঘটা

কোথায় হৈমন্তী? অভিনেত্রীকে ঘিরে রহস্যের ঘনঘটা

স্টাফ রিপোর্টার: সুতোয় টান পড়তেই শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতিতে উঠে আসছে একের পর এক নাম। রাজ্যের প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে দিয়ে শুরু হয়েছিল। নিয়োগ দুর্নীতিতে সর্বশেষে যাঁর নাম জড়াল, তিনি হৈমন্তী গঙ্গোপাধ্যায়।এই মামলায় ইডির হাতে গ্রেফতার কুন্তল ঘোষই এই নামের উল্লেখ করে তদন্তে নতুন মাত্রা এনে দিয়েছে।বৃহস্পতিবার কুন্তল ঘোষের মুখে প্রথমবার শোনা গিয়েছিল হৈমন্তী গঙ্গোপাধ্যায়ের নাম।কুন্তলের দাবি, দুর্নীতির সব টাকা নাকি হৈমন্তীর কাছেই। আর তার পর থেকেই হৈমন্তীকে নিয়ে কৌতূহল তৈরি হয়েছে।

কোথায় হৈমন্তী? অভিনেত্রীকে ঘিরে রহস্যের ঘনঘটা

দানা বেঁধেছে রহস্যও। শুক্রবার জানা গেল, তাঁর বাড়ি হাওড়ায়। বাকসাড়া রোডের সেই প্রাসাদোপম বাড়ি থেকে মডেল-অভিনেত্রী হিসেবে হৈমন্তীর উত্থান প্রায় উল্কার গতিতে।সূত্রের খবর, গোপাল দলপতির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল হৈমন্তীর। পরে বিয়ে। বেশ ধূমধাম করেই হাওড়ার বাকসারাতে বিয়ে হয়েছিল হৈমন্তীর। গিয়েছে, হৈমন্তীর সঙ্গে বিয়ের পর তাঁর কথাতেই নিজের নাম বদলে আরমান গঙ্গোপাধ্যায় হন গোপাল দলপতি। সূত্রের দাবি, গোপাল এবং আরমান— এই দুই নামেই রয়েছে দু’টি প্যান কার্ড।

কোথায় হৈমন্তী? অভিনেত্রীকে ঘিরে রহস্যের ঘনঘটা

কিন্তু কেন জোড়া নামের ব্যবহার? তা ঘিরেই বাড়ছে রহস্য।শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় ধৃত কুন্তল ঘোষ, তাপস মণ্ডলদের থেকে গোপাল দলপতির নাম জানতে পেরে তাঁকে জেরার জন্য ডেকে পাঠিয়েছিল সিবিআই । তবে গোপালের দাবি ছিল, তাঁর সামনে টাকাপয়সার লেনদেন হয়েছে, কিন্তু তিনি কোনও টাকা নেননি।তাঁর এই দাবির পরই কুন্তলের বয়ান, সব টাকা আছে গোপালের স্ত্রী হৈমন্তীর কাছে। সূত্রের খবর, হৈমন্তী অ্য়াগ্রো লিমিটেড নামে একটি কোম্পানিও তৈরি হয়েছিল। কলকাতায় সেই অফিস।

কোথায় হৈমন্তী? অভিনেত্রীকে ঘিরে রহস্যের ঘনঘটা

কিন্তু সেই অফিসে আর কেউ এখন আসেন না। এদিকে কলকাতার ফ্ল্যাটেও কিছুদিন ধরেই আসেন না হৈমন্তী। এখানেই থাকতেন গোপাল দলপতিও। ফ্ল্যাটের আবাসিকদের সঙ্গে যোগাযোগ ছিল গোপালের। কিন্তু হৈমন্তী মাঝেমধ্যে টুকটাক কথা বলতেন। সেই ফ্ল্যাটের বাইরে সিঁড়ির ল্যান্ডিংয়ে পড়ে রয়েছে হৈমন্তীর সিনেমার স্ক্রিপ্ট।সূত্রের খবর, হৈমন্তী দিন দশেক আগেও বাড়ি গিয়েছিলেন। বাড়িতে মা, বাবা, বোন রয়েছেন। তবে মেয়ের জীবনযাপন সম্পর্কে মায়ের তেমন কোনও ধারণা নেই বলেই দাবি।

কোথায় হৈমন্তী? অভিনেত্রীকে ঘিরে রহস্যের ঘনঘটা

হৈমন্তীর মায়ের দাবি, গোপালের সঙ্গে ডিভোর্স হয়ে গিয়েছিল হৈমন্তীর। কোথায় হৈমন্তী জানি না।ওরা মরে গিয়েছে…কার্যত মেয়ে জামাইয়ের প্রতি দৃশ্যতই অসন্তোষ প্রকাশ করেন তিনি।যদিও এলাকাবাসীর সূত্রে খবর, মেয়ে হৈমন্তীর ভালই যাতায়াত ছিল এই বাড়িতে। ১২ -১৩ দিন আগেই সে বাড়ি এসেছিল বলেও এলাকাবাসীর দাবি। এদিকে এদিন হৈমন্তীর বোনও সংবাদমাধ্যমের সামনে মুখ খোলেন। কার্যত দিদির প্রতি তিনি যে বিরক্ত সেটাও এদিন দৃশ্যতই বোঝা যায়। হৈমন্তীর বোন বলেন, দিদি কোথায় আছে আপনারাই খুঁজে বের করুন।

কোথায় হৈমন্তী? অভিনেত্রীকে ঘিরে রহস্যের ঘনঘটা

আমরা কোথা থেকে জানব! গিয়েছে, রাতের অন্ধকারে নামি দামি কোম্পানির গাড়ি থেকে হৈমন্তী নামতেন। বাড়ি ঢুকতেন এবং বেরিয়েও যেতেন রাতের অন্ধকারে। লোকজনের আড়ালে বাড়িতে ঢুকতেন গোপাল দলপতি। রাতের অন্ধকারে দামি গাড়ি এসে থামত বাড়ির সামনে। আশপাশ ফাঁকা হলে সেই গাড়ি থেকেই সকলের নজরের আড়ালে বাড়িতে ঢুকতেন গোপাল দলপতি।হৈমন্তীর টলিউড যোগ নিয়েও তথ্য মিলেছে। মডেলিং ছাড়াও বেশ কিছু ছবিতে ছোট ছোট চরিত্রে অভিনয় করেছেন গোপাল ওরফে আরমানের দ্বিতীয় স্ত্রী। মেয়ে যে অভিনয় করতেন সে কথা স্বীকার করেন মা ও পরিবারের সদস্যরা।

কোথায় হৈমন্তী? অভিনেত্রীকে ঘিরে রহস্যের ঘনঘটা

বিয়ের পর নাকি স্বামী-স্ত্রী মিলে সংস্থা খুলেছিলেন হৈমন্তী অ্যাগ্রো প্রাইভেট লিমিটেড। তারই ডিরেক্টর ছিলেন আরমান-হৈমন্তী। সম্ভবত তার আড়ালেই টাকা নয়ছয় হয়েছে। যদিও আরমান ওরফে গোপাল বারবারই দাবি করেছেন, তিনি কোনও টাকা নেননি। হৈমন্তী সম্প্রতি বেহালায় ফ্ল্যাট কিনেছিলেন। মুম্বইয়ে কাজ খুঁজছিলেন। তবে সামান্য কাজ করে কীভাবে বেহালার মতো জায়গায় ফ্ল্যাট কিনলেন তিনি, টাকার উৎস কী, সেসব প্রশ্ন উঠছেই। তদন্তকারী সংস্থা ইডি সূত্রে জানা গিয়েছে, একটি বেসরকারি ব্যাঙ্কে আরমানের অ্যাকাউন্ট রয়েছে।

কোথায় হৈমন্তী? অভিনেত্রীকে ঘিরে রহস্যের ঘনঘটা

নথিতে দেখা গিয়েছে, ওই অ্যাকাউন্টে ‘নমিনি’ হিসাবে নাম রয়েছে হৈমন্তীর। সিবিআই সূত্রে জানা গিয়েছে, ২০১৭ থেকে মুম্বইয়ের একটি সংস্থার সঙ্গে যোগ রয়েছে আরমান এবং হৈমন্তীর। আরমানের অ্যাকাউন্ট থেকে ওই সংস্থায় বহু টাকার লেনদেন হয়েছে।ঘটনাচক্রে, হৈমন্তী বা তাঁর স্বামী গোপাল দলপতি ওরফে আরমান গঙ্গোপাধ্যায় এখন কোথায় আছেন, তা অজানা। এর আগে একাধিক বার তদন্তকারীদের ডাকে হাজির হয়েছেন গোপাল। আবার কখনও প্রয়োজন মনে করলে তাঁকে তলব করা হতে পারে।

Most Popular