খবররাজ্য

সোনারপুর ব্লকের ৬ টির মধ্যে ২ টি গ্রাম পঞ্চায়েতে তৃণমূলের অন্তর্কলহ মাত্রাছাড়া

রাজকুমার সূত্রধর, কলকাতা ঃ আগামী পঞ্চায়েত নির্বাচনে সোনারপুর ব্লকের ছ টি গ্রাম পঞ্চায়েতের ভিতর দুটি তে জোড়া ফুলের দলীয় কোন্দল মাত্রাছাড়া । ফলে ওই দুটি পঞ্চায়েত এ সংগঠনের ভিতর খোলনলচে বদল না করলে তা হাতছাড়া হতে পারে। আর এই দুটি গ্রাম পঞ্চায়েত হল প্রতাপনগর ও কালিকাপুর এক। এই মর্মে তৃণমূল কংগ্রেসের শীর্ষ নেত্বৃত্বের কাছে লিখিতভাবে চিঠি দিয়েছে দলের শুভাকাঙ্খী অংশ।

দলীয় সূত্রে জানা গিয়েছে ওই ব্লকের আদি তৃণমূলের দেড়শো র বেশি অনুগতরা ওই চিঠিতে স্বাক্ষর করেছেন।দলের উপরতলার কাছে দেওয়া ওই চিঠিতে সংশ্লিষ্ট দুটি পঞ্চায়েতের কাজকর্ম নিয়ে বিস্তর অভিযোগ রয়েছে। তাতে বলা হয়েছে, ওই দুটি পঞ্চায়েত এর নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা প্রধানদের হাতে নেই। তাঁদের ঠুটো জগন্নাথ করে কতিপয় নেতা সামগ্রিক কাজ চালান। তাতে কোনও স্বচ্ছতা থাকছে না।

বিশেষ করে একশো দিনের কাজ, আবাস যোজনা প্রকল্পের টাকা নয়ছয় হয়েছে। চলছে স্বজনপোষন। সঠিক উপভোক্তাদের অনেকে সামাজিক প্রকল্পের টাকা পাননি। যারা পেয়েছেন তাদের ঘুরপথে ঘুষ দিতে হয়েছে। এই কারণে তৃণমূল দলের ভিতর ও অসন্তোষ তৈরি হয়েছে। বিশেষ করে এই সব অসহ্য কাজের বিরুদ্ধে তৃণমূলের যারা সোচ্চার তারা মাঝে মধ্যেই প্রতিবাদ জানাচ্ছেন।

কয়েকদিন আগে এই ইস্যু তে একটি পঞ্চায়েতের সামনে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন তৃণমূলের একদল লোক। দলের এক নেতা বলেন এ নিয়ে সোনারপুর দক্ষিণের বিধায়ক ও রীতিমত বিরক্ত। এই কারণে ওই সব অসচ্ছদের বিরুদ্ধে তিনি একবার সোচ্চার হন। তাদের পঞ্চায়েত অফিসের ধারেকাছে আসতেই নিষেধ করে দিয়েছিলেন।

তারপর বেশ কিছুদিন সংশ্লিষ্ট রা চুপ ছিল। পরে ফের তারাই মাথাচাঁড়া দিয়ে এখন নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা তাদের কবজায়। যা এলাকার ভোটটরা একেবারে মেনে নিতে পারছে না। পঞ্চায়েত ভোটের আগে তাই এদের সরিয়ে না দিলে দুটি পঞ্চায়েত এর ফল খুব খারাপ হবে বলে তৃণমূলের একটি অংশ আশঙ্কা প্রকাশ করেছে।

Related Articles

Back to top button
error: Content is protected !!