Monday, April 15, 2024
spot_img
Homeরাজ্যতৃণমূল বিধায়কের বাড়িতে উদ্ধার ১১ কোটি!

তৃণমূল বিধায়কের বাড়িতে উদ্ধার ১১ কোটি!

স্টাফ রিপোর্টার: এবার ‘কুবেরের ধন’ পাওয়া গেল রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী তথা মুর্শিদাবাদের জঙ্গিপুরের তৃণমূল বিধায়ক জাকির হোসেনের বাড়ি ও অফিস থেকে।বুধবার থেকে জাকিরের বিড়ি কারখানা এবং তাঁর দফতর-সহ বিভিন্ন এলাকায় চলছিল আয়কর তল্লাশি। আয়কর দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, তল্লাশিতে মিলেছে ১১ কোটি টাকা। আয়কর দফতর সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, উদ্ধার হওয়া ১১ কোটি টাকার মধ্যে কেবল মাত্র একটি জায়গা থেকেই মিলেছে ৯ কোটি টাকা।

তৃণমূল বিধায়কের বাড়িতে উদ্ধার ১১ কোটি!

এ ছাড়া গোডাউনে হানা দিয়েও উদ্ধার করা হয়েছে ২ কোটি টাকা। বুধবার সকালে সামশেরগঞ্জের শ্রুতি এলাকায় হানা দেয় আয়কর দফতর। আনন্দ বিড়ি ফ্যাক্টরি, বিজলি বিড়ি ফ্যাক্টরি, সুতির শিব বিড়ি ফ্যাক্টরিতে হানা দেন আয়কর দফতরের আধিকারিকরা।আয়কর দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, তল্লাশি হয়েছে মুর্শিদাবাদ এবং কলকাতা মিলিয়ে ২৮টি স্থানে।কোনও কোনও জায়গায় বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত তল্লাশি চলে বলে জানা গিয়েছে।

তৃণমূল বিধায়কের বাড়িতে উদ্ধার ১১ কোটি!

বিষয়টি জানানো হয়েছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটকেও। কোথা থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা এল, তা নিয়ে তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা।টাকার উৎস সম্পর্কে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এই টাকার সঙ্গে পাচারকারী কিংবা কোন হাওলা যোগ আছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।যদিও বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে গিয়ে জাকির হোসেন দাবি করেন আয়কর দপ্তর যে টাকা উদ্ধার করেছে তার মধ্যে এক টাকাও বেআইনি নয়। জাকির হোসেন বলেন, ‘আমার কাছে প্রায় ৭ হাজার শ্রমিক কাজ করে।

তৃণমূল বিধায়কের বাড়িতে উদ্ধার ১১ কোটি!

আমার বিভিন্ন রকমের ব্যবসাও রয়েছে। কৃষিক্ষেত্রের যে ব্যবসার সঙ্গে আমি জড়িত সেখানে সমস্ত লেনদেন নগদে হয়। এর পাশাপাশি শ্রমিকদের বেতনও নগদে দিতে হয়। সেকারণেই রাইস মিলে কিছু নগদ টাকা রাখা ছিল। ওই টাকার একটা অংশ যারা ধান বিক্রি করেছিল তাদেরও প্রাপ্য।’ তিনি দাবি করেন, ‘আমার বাড়ি থেকে যত টাকা নগদ উদ্ধার হয়েছে তার অনেকটাই মহিলাদের জমানো টাকা। এর পাশাপাশি নিরাপত্তার কারণে শ্রমিকদের বেতনের কিছু টাকাও আমার বাড়িতে রাখা ছিল।

তৃণমূল বিধায়কের বাড়িতে উদ্ধার ১১ কোটি!

আয়কর দপ্তরের আধিকারিকদেরকে সমস্ত কাগজপত্র দেখালেও তাঁরা আমার দাবির সত্যতা মানতে চাননি এবং কিছু টাকা ‘সিজ’ করেছেন।’ জাকির হোসেন বলেন, ‘যেভাবে আয়কর দপ্তরের আধিকারিকেরা রাইস মিলে ঢুকে টাকা ‘সিজ’ করেছেন তার ফলে প্রচুর শ্রমিক এবং চাষীদেরকে হয়ত সময়মত তাদের প্রাপ্য টাকা দিতে পারবো না। এতে চাষিদের মধ্যে ক্ষোভ তৈরি হতে পারে। এজেন্সির দ্বারা আমাদেরকে অপমানিত করার চেষ্টা চলছে, এটা খুব দুঃখজনক ঘটনা। তবে আমি সমস্ত কিছুর উত্তর আইনের মাধ্যমেই দেব।’

তৃণমূল বিধায়কের বাড়িতে উদ্ধার ১১ কোটি!

তিনি আরও বলেন, ‘গত ২৩ বছর ধরে আমি এবং আমার কোম্পানি মুর্শিদাবাদ জেলাতে সর্বোচ্চ আয়কর দিই। তৃণমূল করি বলে আমার বাড়ি এবং ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালানো হল কিনা তা আমি বুঝতে পারছি না ‘ এদিকেএই ঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই রাজনৈতিক মহলে জোর শোরগোল। বিজেপির দাবি, রাজ্যের তৃণমূল নেতা-মন্ত্রীদের বাড়িতে তল্লাশি চালালে আরও টাকা উদ্ধার করা যাবে।

তৃণমূল বিধায়কের বাড়িতে উদ্ধার ১১ কোটি!

সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তীও রাজ্যের শাসক শিবিরকে দুষছে। একজন প্রাক্তন মন্ত্রী তথা বিধায়কের বাড়িতে কীভাবে এত কোটি কোটি টাকা আসে, সেই প্রশ্নই তুলেছেন তিনি। বিরোধীদের পালটা জবাব দিয়েছে তৃণমূল। বিজেপি নেতাদের বাড়িতে খুঁজলেও টাকা পাওয়া যাবে বলেই দাবি রাজ্যসভার তৃণমূল সাংসদ শান্তনু সেনের।

Most Popular